-19%
, ,

ডায়াবেটিস ও হিমোগ্লোবিন মাপার মেশিন


Buy ডায়াবেটিস ও হিমোগ্লোবিন মাপার মেশিন

Item Diabetes & Hemoglobin Test Machine 
Brand ACQUIK
Country Of Origin Made in Taiwan
Product ID 8975
Price Tk. 1500
Free Test Strip 10 Pcs
Free Lancet / Niddle 10 pcs
Lancing Device or Penlet  01 Pcs
Battery  Lithium CR2032
You can Buy Directly from the Store or Order Online 
Hotline: 01713-992472 (Office: 02-41000286)

৳ 1,500.00 ৳ 1,850.00

ডায়াবেটিস ও হিমোগ্লোবিন মাপার মেশিন এর দাম

আজকে আপনাকে এমন একটি মেশিন দিবো ডায়াবেটিস ও হিমোগ্লোবিন মাপার মেশিন যা দ্বারা আপনি ডায়াবেটিস ও হিমোগ্লোবিন একসাথে পরীক্ষা করতে পারবেন একই স্ট্রিপ দিয়ে|

বহুমূত্র রোগ, মধুমেহ বা ডায়াবেটিস মেলিটাস একটি হরমোন সংশ্লিষ্ট রোগ। দেহযন্ত্র অগ্ন্যাশয় যদি যথেষ্ট ইনসুলিন তৈরি করতে না পারে অথবা শরীর যদি উৎপন্ন ইনসুলিন ব্যবহারে ব্যর্থ হয়, তাহলে যে রোগ হয় তা হলো ‘ডায়াবেটিস’ বা ‘বহুমূত্র রোগ‘। তখন রক্তে চিনি বা শকর্রার উপস্থিতিজনিত অসামঞ্জস্য দেখা দেয়।

হিমোগ্লোবিন কেন পরীক্ষা করবেন?

একটি হিমোগ্লোবিন পরীক্ষা আপনার রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ পরিমাপ করে। হিমোগ্লোবিন হল আপনার লোহিত রক্তকণিকার একটি প্রোটিন যা আপনার শরীরের অঙ্গ ও টিস্যুতে অক্সিজেন বহন করে এবং আপনার অঙ্গ ও টিস্যু থেকে কার্বন ডাই অক্সাইড আপনার ফুসফুসে নিয়ে যায়।

অপর একটি হিমোগ্লোবিন পরীক্ষা যদি দেখা যায় আপনার হিমোগ্লোবিনের মাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে কম, এর মানে হল আপনার লোহিত রক্তকণিকার সংখ্যা কম (অ্যানিমিয়া)। ভিটামিনের অভাব, রক্তপাত এবং দীর্ঘস্থায়ী রোগ সহ রক্তশূন্যতার বিভিন্ন কারণ থাকতে পারে।

যদি হিমোগ্লোবিন পরীক্ষায় স্বাভাবিক মাত্রার চেয়ে বেশি দেখা যায়, তবে এর বেশ কয়েকটি সম্ভাব্য কারণ রয়েছে – রক্তের ব্যাধি পলিসিথেমিয়া ভেরা, উচ্চ উচ্চতায় জীবনযাপন, ধূমপান এবং পানিশূন্যতা।

রক্তে হিমোগ্লোবিনের সঠিক মাত্রা কত?

এ কথা ঠিক, নারীদের স্বাভাবিক হিমোগ্লোবিনের মাত্রা পুরুষদের স্বাভাবিক মাত্রার চেয়ে কম। পুরুষের রক্তের হিমোগ্লোবিনের স্বাভাবিক মাত্রা প্রতি ডেসিলিটারে ১৩.৫ থেকে ১৭.৫ গ্রাম। নারীদের রক্তে তা ১২ থেকে ১৫.৫ গ্রাম। কিন্তু এই মাত্রার চেয়ে কম হিমোগ্লোবিন থাকা স্বাভাবিক নয়।

ডায়াবেটিস কেন হয়? লক্ষণগুলো কী?

আমরা যখন খাবার খাই, তখন আমাদের প্যানক্রিয়াস থেকে ইনসুলিন নিঃসৃত হয়। ইনসুলিনের কাজ হলো, যে খাবার খাচ্ছি, সেটার অতিরিক্ত গ্লুকোজ কমিয়ে দেওয়া। যখন ইনসুলিনের উৎপাদন কমে যায় বা ইনসুলিন উৎপাদন হওয়ার পরও যখন কাজ করতে পারে না, তখন শরীরে অতিরিক্ত গ্লুকোজ থাকে। সেই অবস্থাকে আমরা ডায়াবেটিস বলছি। খালি পেটে যদি গ্লুকোজের মাত্রা ৭-এর বেশি থাকে আর খাওয়ার পর যদি ১১-এর বেশি থাকে, তখন সেই অবস্থাকে ডায়াবেটিস বলে। টাইপ-১ ডায়াবেটিসের ক্ষেত্রে সবাই বুঝতে পারে। হঠাৎ করে স্বাস্থ্য খারাপ হয়ে যায়। ওজন কমে যায়। সমস্যা হয় টাইপ-২ ডায়াবেটিসের রোগীদের বেলায়। তাঁরা বুঝতেই পারেন না যে তাঁদের ডায়াবেটিস আছে। বারবার প্রস্রাব করা, খাবার খেয়েও ক্ষুধা না মেটা, ক্লান্ত লাগা, ঝিম ধরা ভাব, কোথাও কেটে গেলে বা ঘা হলে সহজে সেটা না শুকানো—এ রকম কিছু লক্ষণ থাকে। যেহেতু তাঁরা চিকিৎসকের কাছে যান না, তাই তিন-চার বছরে অনেক ক্ষতি হয়ে যায়। দেখা গেল, চোখে রক্ত জমেছে। হার্টে ব্লক, যকৃতে ক্রিয়েটিনিন বেশি।

ওজনের সঙ্গে ডায়াবেটিসের সম্পর্ক কী?

সরাসরি বৈজ্ঞানিক সম্পর্ক আছে, এমন বলা যাবে না। তবে যাঁদের ডায়াবেটিস, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায়, তাঁরা ফাস্ট ফুড খেতে ভালোবাসেন। শুয়ে-বসে সময় কাটান, ওজন বেশি। এ কারণে তাঁদের শরীরে ইনসুলিন প্রতিরোধক বেড়ে যায়। ফলে ইনসুলিন নিঃসরণ হলেও সেটা কাজ করতে পারে না। তাই টাইপ-২ ডায়াবেটিস হওয়ার আশঙ্কা প্রবল থাকবে। বডি-মাস-ইনডেক্স ঠিক রাখা খুবই জরুরি। আর পারিবারিক ইতিহাস থাকলেও জিনগত ভূমিকা বা জেনেটিক রোলের ক্ষেত্রে ডায়াবেটিস হওয়ার আশঙ্কা বেশি। একটি হলো জিনগত ভূমিকা, আরেকটি হলো জীবনযাপন বা লাইফস্টাইল। বাবা-মায়ের ডায়াবেটিস আছে মানে, আপনার ডায়াবেটিস হওয়ার আশঙ্কা ৫০ শতাংশ বেশি। আর জীবনযাপন যদি স্বাস্থ্যকর না হয়, সে ক্ষেত্রে আরও ৫০ শতাংশ। মানে শতভাগ। ঘরের কাজ, অফিসের কাজ, যা-ই থাকুক না কেন, ব্যায়ামের বিকল্প নেই। প্রতি সেকেন্ডে দুই পা হাঁটতে হবে। জোরে জোরে প্রতিদিন অন্তত আধা ঘণ্টা হাঁটতে হবে।

ডায়াবেটিস কী?

ডায়াবেটিস একধরনের মেটাবলিক ডিজঅর্ডার। শরীরে ইনসুলিন আছে, কিন্তু কাজ করতে পারছে না। কিংবা ইনসুলিন একেবারেই নষ্ট হয়ে গেছে। আমরা সাধারণত চার ধরনের ডায়াবেটিসের কথা বলি। টাইপ-১, টাইপ-২, জেস্টেশনাল এবং অন্যান্য। টাইপ-১ মানে হলো, যেভাবেই হোক, যাঁদের শরীরে ইনসুলিন নষ্ট হয়ে গেছে, তাঁদের যদি আলাদা করে ইনসুলিন দেওয়া না হয়, তাহলে তাঁরা মারা যেতে পারেন। আমরা যখন বাইরের নানা ধরনের খাবার খাই, ফাস্ট ফুড খাই, তখন শরীরে একধরনের পরিবর্তন আসে। দেখা যায়, শরীরে ইনসুলিন আছে, কিন্তু সেটা কাজ করতে পারছে না। তখন আমরা যে খাবারই খাই, সেটার গ্লুকোজ জমে যায়। এটা টাইপ-২ ডায়াবেটিস।

হিমোগ্লোবিন ও ডায়াবেটিস মাপার মেশিন সেরা দামে কিনুন আলিফ সার্জিক্যাল থেকে

Item Diabetes & Hemoglobin Test Machine 
Brand ACQUIK
Country Of Origin Made in Taiwan
Product ID 8975
Price Tk. 1500
Free Test Strip 10 Pcs
Free Lancet / Niddle 10 pcs
Lancing Device or Penlet  01 Pcs
Battery  Lithium CR2032
Hemoglobin Test Machine

Item Diabetes & Hemoglobin Test Machine 
Brand ACQUIK
Country Of Origin Made in Taiwan
Product ID

Price Tk. 1500
Free Test Strip 10 Pcs
Free Lancet / Niddle 10 pcs
Lancing Device or Penlet  01 Pcs
Battery  Lithium CR2032

Based on 0 reviews

0.0 overall
0
0
0
0
0

Be the first to review “ডায়াবেটিস ও হিমোগ্লোবিন মাপার মেশিন”

There are no reviews yet.

Loading...
Facebook Messenger for Wordpress
error: Content is protected !!